কুমিল্লার চান্দিনায় ড. রেদোয়ানের গাড়ি বহরে হামলা

0
168


আনোয়ার কুমিল্লা প্রতিনিধি ::

কুমিল্লার চান্দিনায় ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ড. রেদোয়ান আহমেদের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে।এতে ৬ নেতাকর্মী আহতহয়েছে। শুক্রবার (২৮ ডিসেম্বর) বিকাল সোয়া ৬টায় চান্দিনা উপজেলার বাড়েরা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- বাতাঘাসী গ্রামের হাজী চেরাগ আলীর ছেলে সহিদুলইসলাম, একই গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম, সব্দলপুর গ্রামেরআব্দুল মুনাফের ছেলে মাঈন উদ্দিন, আলী আহাম্মদের ছেলে এরশাদুজ্জামান, ওমর আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম এবং সুহিলপুর গ্রামেরবাবরী মিয়ার ছেলে শাহ আলম এদের মধ্যে আহত সহিদুল ইসলামকেআশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লামেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেরেফার করা হয়।

আহত সহিদুল ইসলাম জানান, আমরাপ্রার্থী রেদোয়ান আহমেদের সঙ্গে অপর একটি গাড়িতে করে ছাতাড্ডা যাওয়ার পথে বাড়েরা বাজারে পৌঁছালে কয়েকজন লোক এসে আমাদেরকে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর শুরু করে এবং গাড়িটি ভাঙচুরকরে।২০ দলীয় জোট প্রার্থী এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ জানান, আমার গাড়িসহ ৩টি গাড়িযোগে আমার নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে আমার নিজ বাড়ি ছাতাড্ডা যাচ্ছিলাম।

এ সময় বাজারে পৌঁছার পর দোবারিয়া গ্রামের মনির মালসহ আওয়ামী লীগের লোকজন আমার পেছনের গাড়ির পথরোধ করে হামলা করে। এতে আমার ৬ নেতা-কর্মী আহত হয়।আমি ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে সহকারী রিটার্নিং অফিসার উপজেলা
নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এসএম জাকারিয়াকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী পাঠান। ঘটনাস্থলথেকে আহতদের সহ হামলায় ভাঙচুর হওয়া গাড়িটি উদ্ধার করে।আহতদের চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ৫ জনকে থানায় নিয়ে যায়। একদিকে আমার নেতা-কর্মীদের মারধর করে আহত করা হয়েছে অপরদিকে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে মামলায় আটকানোর পাঁয়তারা করছে।

এদিকে, বাড়েরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি রওশন আলী প্রধান জানান, রেদোয়ান আহমেদের গাড়ি বহরের পেছনের গাড়িতে পুলিশ লেখা এবং অবৈধ অস্ত্র থাকায় আমাদের লোকজন তাদেরকে আটক করেপুলিশে দিয়েছে। বিষয়টি অস্বীকার করে ড.রেদোয়ান আহমেদ জানান, মূলত আমারলোকজনের ওপর অতর্কিত হামলা করে ওই গাড়িতে ওই সব অস্ত্র দিয়েছে তাঁরা। এ ব্যাপারে চান্দিনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবুল ফয়সল জানান, ঘটনার পর পর ঘটনাস্থল থেকে তাদেরকে আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here