উল্টো ডাক : হাছিব সাইফ

0
43

উল্টো ডাক
হাছিব সাইফ

চিন্তার অবসান ঘটিয়ে পৃথিবীর জন্য কেঁদনা;
পৃথিবী কি তোমার জন্য কাঁদে। সেও তো একদিন তোমাকে হারাবে। ধূলোয় মিশে যাবে তার দেহ। ভালো যেহেতু বেসেই ফ্যালেছো মুক্তির চিন্তা করো; নাহয় পৃথিবীর বিষাক্ত প্রেম দন্তে কামড় খেয়ে যখম হতে হবে। চিৎকার করতে হবে মাটিতে মিশে যাবার জন্য,কিন্তু পৃথিবীর মাটি তোমাকে গ্রহণ করবে না। ঠিক অভিশপ্ত প্রণীর মতো তাড়িয়ে পোকামাকড়ের উদর ভরাবে।
কথাগুলো আমার কান বেয়ে মস্তিষ্কে নিরব শব্দে ঘন্টা দেড়েক আওড়াচ্ছে উত্তরের লেলিহান শীতল বাতাসে মানব অতিষ্ঠের মতো। দৃষ্টিটা জানালায়। এ্যাতো,নিরেস কথা আমার মস্তিষ্কে বিঁধছে ক্যানো? অতিষ্ঠ আজ ক্যানো এ্যাতোটা সীমালঙ্ঘন করছে? চোখ আর বাতাস নিভৃত প্রেম করেও জানতে পারেনি এইটুকুন লেলিহান বাতাসের চিত্ত ফাটা আর্তনাদ! হঠাৎ দখিনের এলোবাতাস বাবরি চুলগুলো পাগলের রুপ ধরিয়ে সুস্থ-স্বাভাবিক সমাজ থেকে বের করে দিলো। চার দেয়ালের পৃষ্ঠাগুলো সর্বশক্তিতে খামচে রক্তলাল করলাম উত্তর পড়ার জন্য। সৌভাগ্যের মোটা দড়িটি কামড়ে ধরার চেষ্টা করলাম। হয়নি! আমাকে মুক্ত করার জন্য নেয়া হলো নিরুদ্দেশ হবার কারাগারে। আমি ধৃত নই তখন ধৃষ্ট স্বাধীন। বলা হলো-‘সুস্থ তুমি হবে,রেখে গেলাম নিরন্তরে’। বিশ্বাস আর স্বপ্ন কি আমার এই ছিলো? ফিরে আসার কথা বলে চিরতরেই যে সেখানে রেখে গ্যালো! বেদনার রঙে আমার ললাট হলো লাল। শুইয়ে দিলো পৃথিবীর বুকে আর অভিশপ্ত করে পাঠিয়ে দিলো পোকামাকড়ের উদরে। ধূলোর আঘাতে পৃথিবী নিশ্চিহ্ন হলো পোকাগুলোও মিশে গ্যালো অদৃশ্যে। শেষ পরে রইলো একটি আদর্শ সাদা ডায়েরি এবং কিছু লেখা। ঠিক উল্টো ডাকে যেন মুক্তি পাই!!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here